বৃহস্পতিবার, জুন 23, 2022

যোগ্য বিনিয়োগকারী: আইপিও আবেদনে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

পুঁজিবাজার ডেস্কঃ পুঁজিবাজারের যোগ্য বিনিয়োগকারীদের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন করার ক্ষেত্রে বিনিয়োগ সীমা বাড়িয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

এখন থেকে যোগ্য বিনিয়োগকারীদের আইপিও আবেদন করতে হলে শেয়ারবাজারে কমপক্ষে তিন কোটি টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে। একইভাবে যোগ্য বিনিয়োগকারী হিসেবে বিবেচিত পেনশন ফান্ড ও স্বীকৃত প্রোভিডেন্ট ফান্ড এবং গ্র্যাচুইটি ফান্ডের আইপিও আবেদন করতে কমপেক্ষ দেড় কোটি টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

পুঁজিবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মাধ্যমে তারল্য বাড়ানোর লক্ষ্যে সোমবার কমিশন সভা করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি। কমিশন সভা শেষে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, আইপিও আবেদনের ক্ষেত্রে পেনশন ফান্ড এবং স্বীকৃত প্রোভিডেন্ট ফান্ড এবং গ্র্যাচুইটি ফান্ড বাদে অন্যান্য যোগ্য বিনিয়োগকারীদের আগে কাট অফ ডেটে পুঁজিবাজারে কমপক্ষে এক কোটি টাকা বিনিয়োগ থাকার বাধ্যবাধকতা ছিল। এখন সেটাকে বাড়িয়ে তিন কোটি টাকা করা হয়েছে।

একইভাবে পেনশন ফান্ড এবং স্বীকৃত প্রোভিডেন্ট ফান্ড ও গ্র্যাচুইটি ফান্ডের ক্ষেত্রে আগে কমপক্ষে ৫০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকার বাধ্যবাধকতা ছিল। সেটাকে বাড়িয়ে এখন এক কোটি ৫০ লাখ টাকা করা হয়েছে।

সেই সঙ্গে অনুমোদিত পেনশন ফান্ড এবং স্বীকৃত প্রোভিডেন্ট ফান্ড ও গ্র্যাচুইটি ফান্ডের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিয়েছে বিএসইসি। এজন্য অনুমোদিত পেনশন ফান্ড এবং স্বীকৃত প্রোভিডেন্ট ফান্ড ও গ্র্যাচুইটি ফান্ডকে ইলেকট্রনিক্স সাবসক্রিপশন সিস্টেমে (ইএসএস) নিবন্ধনের ক্ষেত্রে দুই স্টক এক্সচেঞ্জের ইলেকট্রনিক্স সাবসক্রিপশন সিস্টেমে কিছু দলিল দস্তাবেজ পরীক্ষা করে নিবন্ধন নিশ্চিত করতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অনুমোদিত কপি ও নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বিবরণী (সংশ্লিষ্ট ফান্ড তার আর্থিক বিবরণীতে প্রদর্শিত অর্থের অতিরিক্ত অর্থ কোনো আইপিওতে বিনিয়োগ করতে পারবে না)।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ