বুধবার, সেপ্টেম্বর 28, 2022

গোটা গর্জনে ফোটা বৃষ্টি

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ এ যেন বিশাল হম্বিতম্বি করা গর্জন সার। আকাশ কালো করে আসা মেঘে দু ফোটা বৃষ্টি। – কথাগুলো বলছিলেন রাজধানীর একটি কলেজের শিক্ষক। যিনি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দুশ্চিন্তায় আছেন নিজের কেনা কিছু শেয়ার নিয়ে। পুঁজিবাজার ডটকমের এই প্রতিবেদককে কাছে পেয়ে ঠিক এভাবেই নিজের ক্ষোভ ঝাড়ছিলেন। কেন এমন কথা জিজ্ঞেস করতেই গত বুধবারের বিএসইসির সাথে বাজার মধ্যস্থতাকারিদের বৈঠকের বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রোজার মাসে ৩০০ থেকে ৫০০ কোটি টাকার বিনিয়োগ বাড়ানোর যে ঘোষণা তা আসলে পুরোটাই ফাঁকা বুলি। তা না হলে ঘোষণা কার্যকরের দিনই বা কেন আগের দিনের চেয়ে ২৫ শতাংশ কম লেনদেন হবে।’

তার কথার সাথে তাল মেলান ওই হাউজে থাকা বেশ কয়েকজন বিনিয়োগকারি। তাদের মতে আজ অনেকেরই আশা ভংগ হয়েছে। গত বুধবার বাজারসংশ্লিষ্টরা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তার কোন বাস্তবায়ন দেখতে না পেয়ে তাঁরা মর্মাহত।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহের বুধবার (৩০ মার্চ) বিএসইসির সাথে বৈঠক শেষে মার্চেন্ট ব্যাংক ও স্টক ডিলারদের রোজার মাসে বড় বিনিয়োগের সুস্পষ্ট ঘোষণা আসে। বৈঠকে দেয়া প্রতিশ্রুতিকে ঘিরে আগ্রহী সাধারণ বিনিয়োগকারিরাও আশাবাদি হয়ে ওঠে। ঘোষণার প্রভাবে পরের দিন লেনদেন হয় দেড় মাসের সর্বোচ্চ। অথচ আজ থেকে প্রাতিষ্ঠানিকদের বিনিয়োগ শুরু করার কথার পরেও বাজারে লেনদেন কমলো আগের দিনের চাইতে ৩০০ কোটি টাকা। আর এতেই আশাভংগ সাধারণ বিনিয়োগকারিদের।

তবে এখনই আশার হাল ছাড়তে নারাজ অনেকেই। আজকের বাজারে অ-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও মিউচুয়াল ফান্ডের জয়জয়কারে ৩০ মার্চ দেয়া প্রতিশ্রুতিরই ছায়া দেখছেন অনেকে। এবার নিজের ঘর সামলেই তবে অন্য খাতে বিনিয়োগ করা হবে বলে মন্তব্য করেন ওই ব্রোকারেজ হাউজের ব্যবস্থাপক। তার মতে বাজার মধ্যস্থতাকারিরা অনেকটা বাংলা লোককথার মতো “আগে ঘর পরে পর, ঘর সামলে পরকে ধর” নীতিতে আগাতেই স্বাচ্ছ্যন্দ বোধ করছেন। নিজের কাছে পর রেখে ঘর নষ্ট করার মত ভুল তারা এবার আর করবেন না।

আর তার কথার সত্যতা মেলে আজকের বাজার বিশ্লেষনে। আজ বাজারে দর বাড়ার তালিকার প্রথম ১০টি কোম্পানির মধ্যে ৮টিই এই খাতের। এমনকি আজ লেনদেনের বেশ বড় একটি অংশ সম্পন্ন হয়েছে অ-ব্যাংকিং আর্থিক খাতে। আজ বাজারে মোট লেনদেনে হয়েছে ৮৩৬ কোটি টাকা। সেখান থেকে ১৭ শতাংশ বা ১৩৮ কোটি টাকার লেনদেন করে এই খাত প্রথম অবস্থান ধরে রেখেছে। এছাড়াও আর্থিক খাতেই বেড়েছে সর্বোচ্চ সংখ্যক শেয়ারের দর। আজ এই খাতের ৮৬ শতাংশ শেয়ারের দাম বাড়ে। যেখানে ২২টি কোম্পানির মধ্যে মাত্র ২টির দর কমেছে। তাই বলা যায় আজ লেনদেন কম হলেও মূলত অ-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান, লিজিং কোম্পানি কিংবা ব্যাংক খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর ভর করে সূচকের ঊর্ধ্বমুখীতার দেখা মিলেছে।

আজ সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ডিএসইতে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার মাধ্যমে। ফলে লেনদেনের শুরুর ১২ মিনিটের মাথায় ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ৩৩ পয়েন্ট বেড়ে যায়। লেনদেনের শুরুতে দেখা দেওয়া এই ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা লেনদেনের প্রথম দুই ঘণ্টা অব্যাহত থাকে।

তবে দুপুর ১২টার পর একের পর এক প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমতে থাকে। এতে এক পর্যায়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে পতনের আশঙ্কা পেয়ে বসে। অবশ্য এ পরিস্থিতিতেও দাম বাড়ার ধারা ধরে রাখে অধিকাংশ আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও ব্যাংক। ফলে পতনের হাত থেকে রক্ষা পায় সূচক।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে সবখাত মিলে ১২৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৯৫টির। আর ৫৫টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। অন্যদিকে আর্থিক খাতের ১৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়ার বিপরীতে দাম কমেছে ২টির ও ব্যাংক খাতের ১৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়ার বিপরীতে দাম কমেছে ৯টির দাম বেড়েছে।

এতে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৪ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ৭৭১ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ১৩ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৪৮৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ আগের দিনের তুলনায় ২ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪৭০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৮৩৬ কোটি ৬২ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১ হাজার ১১৪ কোটি ৯৫ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন কমেছে ২৭৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে আইপিডিসি ফাইন্যান্সের শেয়ার। কোম্পানিটির ৫৭ কোটি ৯৬ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের ৪৪ কোটি ৫৭ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ৩৬ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে বেক্সিমকো।

এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- ফরচুন সুজ, জিএসপি ফাইন্যান্স, জিনেক্স ইনফোসিস, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ, নাহি অ্যালুমিনিয়াম, ইয়াকিন পলিমার ও ভিএসএফ থ্রেড ডাইং।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ৭৬ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ২৭৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১২৪টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১১৯টির ও ৩৬টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ