বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 29, 2022

রমজানে বাড়বে লেনদেনঃ প্রতিশ্রুতি বাজার মধ্যস্থতাকারীদের

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ আসন্ন রমজানে পুঁজিবাজার-সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের বিনিয়োগ বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। লেনদেনের গতি ধরে রাখতে বাজার মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রত্যেকে সাধ্য অনুযায়ী বিনিয়োগ করবে। এতে ৩০০ থেকে ৫০০ কোটি টাকার নতুন বিনিয়োগ আসবে বলে আশা করছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

বুধবার (৩০ মার্চ) বিকেলে পুঁজিবাজারে তারল্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাজার মধ্যস্থতাকারীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এমন আশাবাদের কথা জানিয়েছেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র রেজাউল করিম। আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বিএসইসি কার্যালয়ে বৈঠকটি হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ।

সভা শেষে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, শেয়ারবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়াতে বিএসইসির চলমান উদ্যোগের অংশ হিসেবে এ বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে বাজার মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিনিয়োগ সক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। যাতে তারা বাজারে বেশি বেশি বিনিয়োগ করতে পারে।

রেজাউল করিম বলেন, বৈঠকে বিএমবিএ’র ১০ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। যা যাচাই-বাছাই শেষে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে। মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো তাদের নিজস্ব পোর্টফোলিওর মাধ্যমে সামনের মাসে ২০০ থেকে ৩০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। এ বিনিয়োগের জন্য বিএমবিএর পক্ষ থেকে সব সদস্য মার্চেন্ট ব্যাংককে চিঠি দেওয়া হবে। বিএমবিএর প্রেসিডেন্ট বিষয়টি তদারকি করবেন।

তিনি আরও জানান, বিএমবিএ’র পাশাপাশি ডিবিএ প্রেসিডেন্ট স্টক ব্রোকার ও ট্রেকহোল্ডারদের ডিলার অ্যাকাউন্টে বিনিয়োগ বাড়ানোর বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন। তারা প্রতিটি ডিলার অ্যাকাউন্টে রমজান মাসে কমপক্ষে ১ কোটি টাকা করে বিনিয়োগ করবেন। এতে শেয়ারবাজারে নতুন ২৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগের আশা করা যাচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানিগুলোর বাজারকে সহায়তা দেয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত কিছু দিনে এসব প্রতিষ্ঠান মিউচুয়াল ফান্ড থেকে বিনিয়োগ করে বাজারকে ‘সাপোর্ট’ দিয়েছে। যার ফলে বাজারে কিছুটা লেনদেনের উন্নতি দেখতে পেয়েছি। তারা রমজান মাসেও ফান্ডগুলো থেকে বিনিয়োগের ধারা অব্যাহত রাখবেন বলে আশা করা যায়।

এদিকে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড থেকে ১০০ কোটি টাকা আইসিবির মাধ্যমে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান রেজাউল করিম। তিনি বলেন, সিএমএসএফকে কীভাবে আরো কার্যকরভাবে পুঁজিবাজারের উন্নয়নে কাজে লাগানো যায় সে বিষয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা করা হয়েছে। আগামীতে আরও কার্যকরি উপায়ে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডের টাকা বিনিয়োগ বাড়ানো হবে। যার উল্লেখযোগ্য অংশ রমজান মাসে বিনিয়োগ করা হবে।

সভায় বিএসইসির পক্ষে সংস্থাটির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম ও পরিচালক শেখ মাহবুবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে স্টেকহোল্ডারদের পক্ষে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) প্রেসিডেন্ট মো. ছায়েদুর রহমান, ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি রোজারিও, অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিজ অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ডসের (এএএমসিএমএফ) প্রেসিডেন্ট হাসান তাহের ইমাম, পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতা তহবিলের (সিএমএসএফ) প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা মো. মনোয়ার হোসেনসহ রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ