মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 27, 2022

শুরুর হাসি টিকলো না শেষে

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ আজ বুধবার সপ্তাহের চতুর্থ কর্মদিবসে বিনিয়োগকারীদের শুরুটা হয়েছিল হাসি দিয়েই। তবে সেই হাসির মিলিয়ে যেতে সময় লেগেছিল মাত্র ১৫ মিনিট। লেনদেনের প্রথম ১৫ মিনিটে ৪০ পয়েন্ট বেড়ে সূচক আজকের সর্বোচ্চ অবস্থান ৭০৭২ পয়েন্টে যাওয়ার পরেই ধীরে ধীরে মিলিয়ে যেতে থাকে বিনিয়োগকারিদের হাসি। এরপর যেন সেই গতকালেরই পুনরাবৃত্তি। গতকালের মতো একইভাবে দিনের প্রথমে অনেকটা উত্থান দেখার পরে ক্রমান্বয়ে সূচকের পতন দেখতে হয় বিনিয়োগকারিদের। ১৫ মিনিটে বাজার যতটুকু বেড়েছিল পরের এক ঘন্টায় প্রায় ঠিক ততটুকুই কমে যায় সূচক। এরপর মার্কেটমেকাররা যেখানে বাজার ধরে রাখতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে গেছেন, সেখানে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারিরা লকডাউনের শংকায় শেয়ার ছেড়ে দিয়ে বাজার ছাড়ার চেষ্টা করেছেন। তার প্রভাব পড়েছে সারাদিনের বাজারে। দিনভর উঠানামা করে প্রধান সূচকের সামান্য পতন দেখে আজকের বাজার শেষ করতে হয় বিনিয়োগকারিদের। এমনকি সূচকের মত লেনদেনেও দেখা গেছে একইরকম চিত্র। সূচক যেমন গতকালের চাইতে মাত্র দশমিক ১৩ পয়েন্ট কমেছে তেমনি লেনদেন কমেছে মাত্র দেড় কোটির সামান্য বেশি। আবার বস্ত্রখাতের সর্বোচ্চ লেনদেন, বিক্রেতা শুন্য শেয়ারের তালিকায় এ খাতের ৩ কোম্পানি বিনিয়োগকারিদের গতকালের কথাই মনে করিয়ে দেয়।

তবে সাধারণ বিনিয়োগকারিদের কাছে গতকাল কিংবা আজকের বাজার কাঙ্খিত বাজার না। বাজারের প্রতিটা মিনিট উৎকন্ঠা ও শংকায় কেটেছে সাধারণ বিনিয়োগকারিদের। এ শংকার পেছনে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি যেমন প্রভাব রাখছে তেমনই লকডাউন নিয়ে সরকারের সিদ্ধান্তহীনতাও ভোগাচ্ছে তাদের।
তবে বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের মতে লকডাউনের কারনে খুব বেশি প্রভাব পড়ার কথা না বাজারে। এবার যেহেতু করোনায় মৃত্যুহার কম এবং অন্যসব ভ্যারিয়েন্টের চাইতে অমিক্রন অনেকটাই নিরীহ, তাই সরকার অতটা কড়াকড়ি করবে না এমনটাই অনুমান করা যায়। আর যদি লকডাউন দেয়াও লাগে তবে তাও অনেকটা ঢিলেঢালা হবে বলে তেমন কোন সমস্যাই হওয়ার কথা না বাজারে। এর আগের লকডাউনেও যেহেতু ব্যাংকের সাথে সাথে পুঁজিবাজার খোলা ছিল, এবারও এমনটাই হবে বলে নিশ্চিত করেছেন বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তাই সাধারণ বিনিয়োগকারিদের লকডাউন সংক্রান্ত ভয়কে একদমই অমুলক বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

তাই আজ সূচক ও লেনদেন যতটুকু কমেছে তাতে হতাশার বদলে বরং আশার আলোই দেখছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। আজ বুধবার ডিএসইতে আগের দিন থেকে মাত্র ১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা কম লেনদেন হয়েছে। এদিন ডিএসইতে ১ হাজার ১১৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যেখানে গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ১১৭ কোটি ৪২ লাখ টাকার।

আজ ডিএসই প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স দশমিক ১৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৭ হাজার ৩২ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই৩০ সূচক ১ পয়েন্ট কমেছে এবং ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক দশমিক ৫৬ পয়েন্ট কমেছে।
ডিএসইতে আজ ৩৮১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৫৮টির বা ৪১.৪৭ শতাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৫৭টির বা ৪১.২১ শতাংশের এবং ৬৬টি বা ১৭.৩২ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৩৮.২৭ পয়েন্ট বা ০.১৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৫৯৭.৬৮ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ৩০৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৪০টির, কমেছে ১৩৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৬টির দর। আজ সিএসইতে ২৬ কোটি ৮৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ