শুক্রবার, মে ২৭, ২০২২

চাঙ্গা পুঁজিবাজার: সুচক ১০০ পয়েন্ট আর লেনদেন ২ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ করোনা নিয়ে ভয় কেটে যাওয়ায় পুঁজিবাজারে চাংগা ভাব ফিরে এসেছে। আজ মঙ্গলবার যেমন সুচকে সেঞ্চুরি ছুইছুই করেছে তেমনি লেনদেনও সমসাময়িক রেকর্ড ছাড়িয়ে ২ হাজার কোটি টাকা ছুইছুই করেছে। উৎফুল্ল মেজাজে বিনিয়োগকারিরা আজ প্রফিট তুলে নিয়েছেন। বিশেষ করে সরকারি শেয়ারের ওপর বিনিয়োগকারিদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। এই খাতের অন্তত ৫টি কোম্পানি ছিলো আজ হল্টেড। নানামুখী সুযোগ সুবিধার মধ্যে গত একটি বছর ধরে দেশের পুঁজিবাজার উঠি উঠি ভাবে এগোচ্ছিল। করোনা ভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ সেই অবস্থাকে ম্লান করে দিয়েছিল গত মাসের শেষের দিকে। কিন্তু গতকাল সোমবার বিনিয়োগকারিদের সেই করোনা ভীতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির পক্ষ থেকে দূর করে দিলে অর্থাৎ যে কোনো অবস্থায় পুঁজিবাজার খোলা থাকবে এমন আশ্বাস দিলে আজ আস্থা সহকারে লেনদেনে ঝাপিয়ে পড়েন বিনিয়োগকারিরা। ফলশ্রুতিতে লেনদেন যায় ২ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি এবং সুচক বেড়ে এক পর্যায়ে উঠে যায় ১০০ পয়েন্টের কাছাকাছি।

উল্লেখ্য গতকাল বিএসইসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, করোনারভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কার মধ্যে চলাচলে বিধিনিষেধ আসলেও পুঁজিবাজারে লেনদেন নিয়ে কোনো অনিশ্চয়তা নেই। গত বছরের এপ্রিলে লকডাউন ও জুলাইয়ে শাটডাউনের মধ্যে ব্যাংকের সময়সীমার সঙ্গে সমন্বয় করে যেভাবে লেনদেন চলেছিল, সেভাবেই এবারও লেনদেন চলবে। সংস্থাটির কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেছেন,‘সংক্রমণ যতই বাড়ুক পুঁজিবাজারের লেনদেন বন্ধ হবে না, যদি ব্যাংকের লেনদেন চালু থাকে।’

লকডাউন ও শাটডাউনের সময় লেনদেন চালু থাকার প্রসঙ্গ তুলে ধরে তিনি বলেন, গত বছরে আমরা লেনদেন চালু রেখেছিলাম। এবারও ব্যাংক যেভাবে চলবে পুঁজিবাজার সেভাবেই চলবে। লেনদেন বন্ধ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।’

এই আশ্বাসের কারনেই মুলত আজকের উত্থান। বিশ্লেষকরা বলছেন, বড় কোনো বাধা না এলে এই উত্থানের জের সুচকের ৮০০০ পয়েন্ট পর্যন্ত যেতে পারে।

এদিকে আজকের বাজার বিশ্লেষনে দেখা গেছে ডিএসই’র প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৫৪ দশমিক ৯৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৭ হাজার ৪৯ দশমিক ১৫ পয়েন্টে। অপর ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৫ দশমিক ১৮ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪৯৫ দশমিক ৮৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২০ দশমিক ১১ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৬২৬ দশমিক ৬৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, আজ ডিএসইতে মোট ৩৭৮টি কোম্পানি, ফান্ড ও বন্ডের লেনদেন হয়েছে। এদের মধ্যে দিন শেষে দর বেড়েছে ১৮৯টির, কমেছে ১৪৬টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৪৩টি শেয়ারের বাজারদর। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৯৭৬ কোটি ৮৮ লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা যা আগের দিনের চাইতে ৪৮৯ কোটি ৪৩ লক্ষ ৯ হাজার টাকা বেশি। আজকের লেনদেনে মোট ৪৩ কোটি ২৮ লক্ষ ২৮ হাজার ৮৫৬টি শেয়ার ২ লক্ষ ৯০ হাজার ৬৯৪বার হাতবদল হয়েছে।

এদিকে খাতভিত্তিক লেনদেনচিত্রে দেখা যায়, আজ ডিএসইর মোট লেনদেনের ১৭ দশমিক ৩৬ শতাংশ দখলে নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১১ দশমিক ১৫ শতাংশ দখলে নিয়েছে প্রকৌশল খাত। ৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে বিবিধ খাত। ৮ দশমিক ৯৯ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে চতুর্থ অবস্থানে ছিল ঔষধ ও রসায়ন খাত। আর জীবন বীমা খাতের দখলে ছিল মোট লেনদেনের ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ।

আজ সূচকের উত্থানে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। মোট সূচকের মধ্যে ৬ দশমিক ৯৪ পয়েন্ট বাড়িয়ে দেয় স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড একাই। সাথে গ্রামীনফোন লিমিটেড ৬ দশমিক ৬৫, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ৬ দশমিক ৪৫ পয়েন্ট বাড়িয়ে সূচকের উত্থানে ভূমিকা রাখে। এছাড়াও , বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি), বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড, আরএকে সিরামিকস্‌ (বাংলাদেশ) লিমিটেড, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এন্ড ডিসটিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড সূচকের উত্থাণে অগ্রণী ভুমিকা রাখে।
অন্য দিকে সূচক কমানোর চেষ্টায় বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড সবচে সক্রিয় ভূমিকা রাখে। এদিন ১ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট কমে বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড’র শেয়ারের কারনে। এছাড়াও ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড ১ দশমিক ৬৫, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড ১ দশমিক ১৮ পয়েন্ট কমিয়ে দিয়েছে সুচক। এর সাথে সূচক কমাতে আরো ভূমিকা রাখে , ফরচুন সুজ লিমিটেড, গ্রীন ডেল্টা ইন্সুরেন্স লিমিটেড, ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সামিট পাওয়ার লিমিটেড, ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড

আবার ডিএসইতে লেনদেনের ভিত্তিতে করা তালিকার শীর্ষে ছিল পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশ লিমিটেড। এদিন কোম্পানিটির প্রায় ১৩৩ কোটি ৬১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এছাড়াও , বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি), বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড, জিএসপি ফাইন্যান্স কোম্পানি (বাংলাদেশ) লিমিটেড, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড লিমিটেড লেনদেনের ভিত্তিতে তালিকার শীর্ষ দশে ছিল।

আজ এক্সচেঞ্জটিতে দরবৃদ্ধির শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হচ্ছে , বিবিএস ক্যাবলস লিমিটেড, বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি), ইস্টার্ন ক্যাবলস লিমিটেড, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ন্যাশনাল টিউবস লিমিটেড, আরএকে সিরামিকস্‌ (বাংলাদেশ) লিমিটেড, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, উসমানিয়া গ্লাস শিট ফ্যাক্টরি লিমিটেড লিমিটেড। অন্যদিকে ডিএসইতে আজ সবচেয়ে বেশি দর কমেছে , অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, খান ব্রাদাস্‌ পি.পি. ওভেন ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, খুলনা প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, মেঘনা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড, রূপালি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, সোনালী পেপার এন্ড বোর্ড মিলস লিমিটেড, ওয়েস্টান মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেড লিমিটেডের।

এদিকে ব্লক মার্কেটে মোট ৩৪টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মোট ৬৩টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ১৯ কোটি ৫০ লক্ষ ১৪ হাজার টাকা।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ