শুক্রবার, মে ২৭, ২০২২

কাল থেকেই হাসি ফুটবে বিনিয়োগকারিদের

৭ হাজার স্ট্রেটেজিক ইনডেক্স আর ৬ পয়েন্ট দূরে

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ স্ট্রেটেজিক ইনডেক্স পয়েন্ট বা কৌশলগত সুচক ৭ হাজার এখন একেবারেই হাতের নাগালে। আশা করা যাচ্ছে কাল থেকে এই পয়েন্টের ওপরেই থাকবে ডিএসইর সুচক এবং এতে করে পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারিদের মুখে ফুটবে হাসির ঝিলিক। রোববারের ধকল কাটিয়ে আজ সোমবার একটি সুন্দর সুচক এবং লেনদেন পেয়েছেন তারা। আগের দিন শেষ বেলায় যে কষ্ট নিয়ে তারা ফিরে গিয়েছিলেন আজ একদিনের উত্থানে সে কষ্টের অনেকটাই লাঘব হয়েছে। আজ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের(ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৬১ পয়েন্ট যা সেই কাংখিত ৭০০০ পয়েন্ট থেকে মাত্র ৬ পয়েন্ট দূরে। আগের দিন সুচক পড়েছিল ৫৪ পয়েন্ট। গতকাল বিনিয়োগকারিদের ধারনা জন্মেছিল, সরকার শিঘ্রই লকডাউন দিবে। কিন্তু বিকেলের মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে লকডাউন না দেয়ার ঘোষণায় আজ বাজার পরিস্থিতি পালটে যায়।

আজ ডিএসইতে বেড়েছে ১৭৮টি কোম্পানির শেয়ার দর, কমেছে ১৫৪টির, অপরিবর্তিত ছিল ৪১টির। আর আগের দিন বেড়েছিল ৯৮টি কোম্পানির দর, কমেছিল ২৫৪টির, অপরিবর্তিত ছিল ৩২টির দর।

আজ দর বৃদ্ধিতে সবেচেয়ে বেশি এগিয়ে ছিল বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানিগুলো। ৮৭ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে সোমবার। এ ছাড়া প্রকৌশল খাতের ৭৯ শতাংশ শেয়ারের দর বৃদ্ধি এ খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়িয়েছে।

ব্যাংক খাতের শেয়ারের ৫০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে, বেড়েছে ৩৫ শতাংশ। বাকি কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর ছিল আগের দিনের মতো।

বস্ত্র খাতেরও একই অবস্থা ছিল। লেনদেনে এই খাতের ৪৩ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে। বেড়েছে ৪১ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর।

বিমা খাতের মধ্যে জীবন বিমা খাতের শেয়ারগুলোর উত্থান ছিল বেশি। সে তুলনায় সাধারণ বিমা খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর বেড়েছে কম।

সোমবার জীবন বিমা খাতের ৭০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। আর ৩০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে। সাধারণ বিমা খাতের ৩০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। ৬৭ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে।

এদিকে আজ ডিএসই’র প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৬১ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ৯৯৪ দশমিক ১৫ পয়েন্টে। অপর ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১২ দশমিক ৫৫ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪৮০ দশমিক ৬৮ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২৭ দশমিক ৪২ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৬৬ দশমিক ৫৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৪৮৭ কোটি ৪৫ লক্ষ ৪৪ হাজার টাকা যা আগের দিনের চাইতে ২৬ কোটি ৩৬ লক্ষ ৫৯ হাজার টাকা বেশি। আজকের লেনদেনে মোট ৩০ কোটি ৮৫ লক্ষ ১৯ হাজার ৪২৪টি শেয়ার ২ লক্ষ ৩৭ হাজার ৯৫১বার হাতবদল হয়েছে।

এদিকে খাতভিত্তিক লেনদেনচিত্রে দেখা যায়, আজ ডিএসইর মোট লেনদেনের ১৪ দশমিক ৮২ শতাংশ দখলে নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১২ দশমিক ১২ শতাংশ দখলে নিয়েছে বিবিধ খাত। ১১ দশমিক ৭৯ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রকৌশল খাত। ৮ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে চতুর্থ অবস্থানে ছিল জীবন বীমা খাত। আর ঔষধ ও রসায়ন খাতের দখলে ছিল মোট লেনদেনের ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

আজ সূচকের উত্থানে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ। মোট সূচকের মধ্যে ৮ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট বাড়িয়ে দেয় ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ একাই। সাথে রবি আজিয়াটা লিমিটেড ৮ দশমিক ২৪, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশ লিমিটেড ৭ দশমিক ৪ পয়েন্ট বাড়িয়ে সূচকের উত্থানে ভূমিকা রাখে। এছাড়াও , বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি), বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস্‌ লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড সূচকের উত্থাণে অগ্রণী ভুমিকা রাখে।

অন্য দিকে সূচক কমানোর চেষ্টায় ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড সবচে সক্রিয় ভূমিকা রাখে। এদিন ৩ দশমিক ১ পয়েন্ট কমে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’র শেয়ারের কারনে। এছাড়াও ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এন্ড ডিসটিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ২ দশমিক ০১, গ্রামীনফোন লিমিটেড ১ দশমিক ২৭ পয়েন্ট কমিয়ে দিয়েছে সুচক। এর সাথে সূচক কমাতে আরো ভূমিকা রাখে , বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড, দ্যা সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, সোনালী পেপার এন্ড বোর্ড মিলস লিমিটেড

আবার ডিএসইতে লেনদেনের ভিত্তিতে করা তালিকার শীর্ষে ছিল পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশ লিমিটেড। এদিন কোম্পানিটির প্রায় ১১ কোটি ২ লক্ষ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এদিকে ব্লক মার্কেটে মোট ৩৯টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মোট ৮৭টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ২৪ কোটি ৬৩ লক্ষ ৫৯ হাজার টাকা।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ