বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

বাজার শেষে সরকারের ঘোষণা করোনা বাড়লেও লকডাউন হবে না

লকডাউনের গুজবে পতনের ধাক্কা

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ গত এক সপ্তাহের আশা জাগানিয়া উত্থানের পর আজ নতুন সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসেই লকডাউনের গুজবে পতনের ধাক্কা লেগেছে পুঁজিবাজারে। সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত টানা উত্থানের পর বাজারে পতন শুরু হয়। দুপুর আড়াইটায় লেনদেন শেষ হওয়া পর্যন্ত এই পতন অব্যাহত থাকলেও প্রায় কাছাকাছি সময় খবর আসে করোনা বাড়লেও সরকার লকডাউন দেবেনা। কিন্তু সেই খবরে আজ রোববার আর পুঁজিবাজারের কোনো কাজ হয়নি। শেষ মুহূর্তে সুচকের উত্থান শুরু হলেও ততক্ষনে সময় শেষ। বাজারের সমাপ্তি। এখন দেখার পালা আগামিকাল সোমবার উর্ধ্বমূখি ধারা ফিরে আসে নাকি লকডাউনের গুজব পতনকে তরান্বিত করে।

বাজারের এ ধরনের ক্রিটিক্যাল সময়ে প্রায় প্রতিটি দেশের প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারিরা বাজারকে সাপোর্ট দেয়। কিন্তু আমাদের দেশে দেখা যায় এর ভিন্ন চিত্র। এখানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারিরা এ ধরনের অবস্থায় নিজেদের হাতের শেয়ার বিক্রি করে বাজারকে এক অতল গহবরে ফেলে দিয়ে নিজেরা সেইফ সাইডে চলে যায়। আমাদের বাজারে এসময় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারিরা সম্মিলিত হয়ে বাজারকে ঠিক রাখার জন্য প্রয়াস চালায়। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা পারস্পারিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিজেদের শেয়ার বিক্রি না করতে পরস্পরকে উৎসাহ দেয়। এভাবেই বাজারের ভারসাম্য প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি সাময়িক হতে পারে কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে বাজার ভালোর জন্য অবশ্যই প্রাতিষ্ঠানিকদের সক্রিয় থাকা সবচেয়ে বেশি জরুরি। বিএসইসি খুব দ্রুতই এ পদক্ষেপটি নেবে এমনটাই সব বিনিয়োগকারির প্রত্যাশা।

এদিকে আজকের বাজার বিশ্লেষনে দেখা যাচ্ছে, ডিএসই’র প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৫৪ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬ হাজার ৯৩২ দশমিক ৬১ পয়েন্টে। অপর ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৪ দশমিক ১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৪৬৮ দশমিক ১৪ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২৩ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ৫৭৯ দশমিক ১২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, আজ ডিএসইতে মোট ৩৭৮টি কোম্পানি, ফান্ড ও বন্ডের লেনদেন হয়েছে। এদের মধ্যে দিন শেষে দর বেড়েছে ৯৮টির, কমেছে ২৪৮টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৩২টি শেয়ারের বাজারদর। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৪৬১ কোটি ৮ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা যা আগের দিনের চাইতে ২২২ কোটি ৩৮ লক্ষ ৮৩ হাজার টাকা কম। আজকের লেনদেনে মোট ৩১ কোটি ১৫ লক্ষ ২৬ হাজার ৫৭১টি শেয়ার ২ লক্ষ ৩৪ হাজার ১২৪বার হাতবদল হয়েছে।

এদিকে খাতভিত্তিক লেনদেনচিত্রে দেখা যায়, আজ ডিএসইর মোট লেনদেনের ১৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ দখলে নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে বিবিধ খাত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ দখলে নিয়েছে জীবন বীমা খাত। ৮ দশমিক ৯৯ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ঔষধ ও রসায়ন খাত। ৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে চতুর্থ অবস্থানে ছিল জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত। আর বস্ত্র খাতের দখলে ছিল মোট লেনদেনের ৭ দশমিক ৭২ শতাংশ।

আজ সূচকের উত্থানে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখে গ্রামীনফোন লিমিটেড। মোট সূচকের মধ্যে ৪ দশমিক ৯৭ পয়েন্ট বাড়িয়ে দেয় গ্রামীনফোন লিমিটেড একাই। সাথে বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড ১ দশমিক ৪২, ফরচুন সুজ লিমিটেড ১ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বাড়িয়ে সূচকের উত্থানে ভূমিকা রাখে। এছাড়াও ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট বাংলাদেশ লিমিটেড, মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড, পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড, আরএকে সিরামিকস্‌ (বাংলাদেশ) লিমিটেড, ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ার লিমিটেড, ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড সূচকের উত্থাণে অগ্রণী ভুমিকা রাখে। অন্য দিকে সূচক কমানোর চেষ্টায় রবি আজিয়াটা লিমিটেড সবচে সক্রিয় ভূমিকা রাখে। এদিন ১৫ দশমিক ৯২ পয়েন্ট কমে রবি আজিয়াটা লিমিটেড’র শেয়ারের কারনে। এছাড়াও ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো বাংলাদেশ কোম্পানি লিমিটেড ৫ দশমিক ৭৯, বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড ৩ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট কমিয়ে দিয়েছে সুচক। এর সাথে সূচক কমাতে আরো ভূমিকা রাখে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড, ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশ লিমিটেড

আবার ডিএসইতে লেনদেনের ভিত্তিতে করা তালিকার শীর্ষে ছিল বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড। এদিন কোম্পানিটির প্রায় ১৪ কোটি ৬৬ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এছাড়াও বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন (বিএসসি), বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ফরচুন সুজ লিমিটেড, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড, দি পেনিনসুলা চিটাগং লিমিটেড, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অফ বাংলাদেশ লিমিটেড, সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড লিমিটেড লেনদেনের ভিত্তিতে তালিকার শীর্ষ দশে ছিল।

আজ এক্সচেঞ্জটিতে দরবৃদ্ধির শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হচ্ছে , এ্যাগ্রিকালচারাল মার্কেটিং কোম্পানি লিমিটেড, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং লিমিটেড, এ্যাপেক্স ফুডস্‌ লিমিটেড, বীচ হ্যাচারি লিমিটেড, বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, খুলনা প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ন্যাশনাল টি কোম্পানি লিমিটেড, রংপুর ফাউন্ড্রী লিমিটেড, ওয়েস্টান মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেড লিমিটেড। অন্যদিকে ডিএসইতে আজ সবচেয়ে বেশি দর কমেছে বাংলাদেশ থাই অ্যালুমিনিয়াম লিমিটেড, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, জিবিবি পাওয়ার লিমিটেড, মেঘনা পেট ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, ন্যাশনাল ফীড মিল লিমিটেড, রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস্‌ লিমিটেড, এস. আলম কোল্ড রোল্ড স্টিলস লিমিটেড, সি পার্ল বিচ রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা লিমিটেড, শ্যামপুর সুগার মিলস লিমিটেড, স্টান্ডার্ড ইন্সুরেন্স লিমিটেড লিমিটেডের।

এদিকে ব্লক মার্কেটে মোট ৩০টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মোট ৭৯টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ১৭ কোটি ৬৪ লক্ষ ৯৬ হাজার টাকা।

spot_img

অন্যান্য সংবাদ