বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

দেশের সব বীমা কোম্পানিতে অবাঞ্ছিত হেমায়েত উল্লাহ

পুঁজিবাজার রিপোর্টঃ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিমা কোম্পানি ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সাবেক মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হেমায়েত উল্লাহকে নিয়োগ না দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হেমায়েত উল্লাহর বিরুদ্ধে দুদকের চলমান কার্যক্রম সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত তাকে কোনো বিমা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রদান করা যাবে না।

মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) আইডিআরএ থেকে এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করা হয়। আইডিআরএ‘র পরিচালক মো. শাহ আলমের সই করা এ নির্দেশনা সংক্রান্ত চিঠি একই সঙ্গে দেশের সব বিমা কোম্পানির চেয়ারম্যান ও সিইও, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএ) এবং বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরামের (বিআইএফ) বরাবর পাঠানো হয়েছে।

এর আগে নানা অনিয়মের দায়ে ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) পদ থেকে হেমায়েত উল্লাহ’কে বহিষ্কার করা হয়েছিল। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে তা নিজ ভোগদখলে রেখে এবং মিথ্যা তথ্য সংবলিত সম্পদ বিবরণী সরকারের কাছে দাখিলের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মামলা দায়ের করেছে। এ কারণে বিদেশ গমনে তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে।

চিঠিতে যা আছে

এ বিষয়টি পুঁজিবাজার ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন আইডিআরএর চেয়ারম্যান ড. এম মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, হেমায়েত উল্লাহর বিরুদ্ধে গণমাধ্যেমে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠে এসেছে। গ্রাহকের কথা চিন্তা করে তাকে দেশের অন্য কোনো বিমা কোম্পানিতে নিয়োগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সংক্রান্ত একটি চিঠি বিমা কোম্পানিগুলোকে দেওয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ কোম্পানির বিগত কয়েক বছরের কার্যক্রম পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, কোম্পানিটিতে ব্যাপক অনিয়ম সংঘটিত হয়েছে। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এ-সংক্রান্ত নেতিবাচক খবর প্রকাশিত হয়েছে। হেমায়েত উল্লাহ ২০১১ সাল থেকে ২০২১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত উক্ত বিমা কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

‘তাকে দেয়া নিয়োগপত্রে স্পষ্ট উল্লেখ আছে, বিমা আইন ২০১০ এবং বিমা আইনের বিভিন্ন বিধি-বিধান অনুযায়ী কোম্পানি পরিচালনা করার জন্য দায়ী থাকবেন মর্মে তার নিয়োগপত্রে সুস্পষ্টভাবে শর্ত আরোপ করা হয়েছিল। কিন্তু তার দায়িত্বকালীন কোম্পানিতে ব্যাপক অনিয়ম সংঘটিত হয়েছে। যার জন্য তিনি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দায়ী।‘

‘হেমায়েত উল্লাহর এমন কর্মকাণ্ডের ফলে বিমা শিল্পের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ণ হয়েছে। উক্ত কোম্পানিতে বিমা পলিসি গ্রাহকরা তাদের ন্যায্য দাবি পাচ্ছেন না। ফলে জনমনে বিমা শিল্পের প্রতি নেতিবাচক ধারণা তৈরি হচ্ছে এবং বিমা প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন ব্যবসা আহরণে ব্যাপক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হচ্ছে।’

‘এ পরিস্থিতিতে বিমা শিল্প তথা বিমা গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষার্থে এবং দুদক ও কর্তৃপক্ষের চলমান কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত এবং কর্তৃপক্ষ থেকে অনাপত্তি গ্রহণ ব্যতিরেকে ফারইষ্ট ইসলামী লাইফ কোম্পানির সাবেক মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত উল্লাহকে কোনো বিমা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রদান না করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।’

spot_img

অন্যান্য সংবাদ